Home RadioSwadesh গরমে কেনো তরমুজ খাবেন

গরমে কেনো তরমুজ খাবেন

SHARE

Watermelonবৈশাখের প্রচণ্ড তাপদাহে শরীরকে সচল ও সুস্থ রাখতে প্রতিদিন তরমুজ খেতে পারেন। গরমে ঘামের কারণে শরীরে পানির ঘাটতি দেখা দেয়। এ থেকে মুক্তি পেতে তরমুজ অনেক উপকারী।  কারণ এতে ৯২ ভাগই পানিতে পরিপূর্ণ, আর তাই গরমকালে আমাদের শরীরে পানির ঘাটতি মেটাতে তরমুজ বেশ কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। এছাড়া এতে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, বায়োটিন ও কপার। তাই বিশেষজ্ঞরাও গরমকালে বেশি করে তরমুজ খাওয়ার পরামর্শ দেন। আরো যেসব কারণে তরমুজ খাবেন-

হজম ক্ষমতা বাড়ায় : তরমুজে রয়েছে প্রচুর মাত্রায় পানি ও ফাইবার, যা হজম ক্ষমতা বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। অনেকেরই গরমের সময় নানা কারণে হজম ক্ষমতা কমে যায়। ফলে দেখা দেয় গ্যাস ও বদহজমের মতো নানা সমস্যা। আর তাই তো এমন রোগ থেকে দূরে থাকতে তরমুজের ওপর ভরসা রাখতেই পারেন।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে : আপনি কি উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় ভুগছেন? তাহলে তো আপনাকে তরমুজ খেতেই হবে। কারণ এ ফলটিতে এমন কিছু পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে, যা রক্তচাপকে নিয়ন্ত্রণে রাখার পাশাপাশি শরীরের প্রতিটি অংশে যাতে রক্ত সরবরাহ ঠিক মতো হয় সেদিকেও খেয়াল রাখে।

শরীরের ক্ষতিকর টক্সিন রোধ করে : নানাভাবে শরীরে প্রতিনিয়ত জমা হচ্ছে নানা ক্ষতিকর টক্সিন বা বিষ। তরমুজ এ বিষাক্ত উপাদানগুলো শরীর থেকে বের করে দিতে সাহায্য করে। তরমুজে উপস্থিত পানি ও নানা রকমের পুষ্টিকর উপাদান শরীর থেকে এ বিষাক্ত পদার্থগুলো বের করে দিতে সাহায্য করে।

ত্বকের শুষ্কতা দূর করে : শরীরে ভিটামিন এ এবং সি এর ঘাটতি দেখা দিলে ত্বক শুষ্ক হতে শুরু করে। সেইসঙ্গে সৌন্দর্যও কমে যায়। তরমুজে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন- এ, বি১, বি৬ এবং সি। যা ত্বকের শুষ্কতা দূর করতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। ফলে ত্বক ধীরে ধীরে হয়ে ওঠে আরো নরম ও সুন্দর। প্রচণ্ড গরমের সময়ও যদি সুন্দর, তুলতুলে ত্বকের অধিকারি হতে চান, তাহলে প্রতিদিনের ডায়েটে তরমুজের অন্তর্ভুক্তি মাস্ট! প্রসঙ্গত, সূর্যালোকের কারণে ত্বক যাতে পুড়ে না যায় সেদিকেও খেয়াল রাখে তরমুজ।

মন ভালো রাখে : একেবারে ঠিক পড়ছেন। মন ভালো রাখতে তরমুজের কোনো বিকল্প নেই বললেই চলে। কারণ তরমুজে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন বি৬ যা আমাদের নার্ভকে শিথিল করার পাশাপাশি আমাদের শরীরের হরমোনের কার্যক্রম যাতে ঠিক মতো হয় সেদিকেও খেয়াল রাখে। ফলে মন খারাপ হওয়ার আশঙ্কা অনেকাংশেই হ্রাস পায়। তাই তো প্রতিদিন অল্প করে হলেও তরমুজ খাওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here