Select your Top Menu from wp menus
সোমবার, ২৩শে অক্টোবর ২০১৭ ইং ।। সকাল ১০:১৫

সংঘর্ষ ধরপাকড়

দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে গতকাল সারা দেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠন। কর্মসূচি চলাকালে বিভিন্ন স্থানে পুলিশের সঙ্গে নেতাকর্মীদের সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এতে আহত হয়েছেন বেশ কয়েকজন নেতাকর্মী। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদ সংবাদ সম্মেলনে  জানিয়েছেন, দলীয় কর্মসূচি থেকে অন্তত ১৭০ জন নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। হামলায় আড়াই শতাধিক নেতা-কর্মী আহত হয়েছেন। এদিকে জামায়াতের ডাকা আজকের হরতালে বিএনপির সমর্থন নেই বলে জানিয়েছেন তিনি।

নোয়াখালীতে সংঘর্ষ, আহত ৫০
স্টাফ রিপোর্টার, নোয়াখালী থেকে জানান, নোয়াখালীতে ঘণ্টাব্যাপী বিএনপি-পুলিশ সংঘর্ষে উভয়পক্ষের ৫০ জন আহত হয়েছে। এ সময় পুলিশ বিএনপির ১৩ জন নেতাকর্মীকে আটক করেছে। খালেদা জিয়ার  গ্রেপ্তারি পরোয়ানার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে নোয়াখালীতে বিক্ষোভ মিছিলকে কেন্দ্র করে বিএনপি ও পুলিশের মধ্যে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ শটগানের ফাঁকা গুলি নিক্ষেপ করে। গতকাল বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত শহরের রশিদ কলোনী মোড় থেকে বিশ্বনাথ এলাকা পর্যন্ত সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে। এ বিষয়ে জেলা ছাত্রদলের সভাপতি নুরুল আমিন খান বলেন, পুলিশের হাতে ৩৫ জন নেতাকর্মী গুলিবিদ্ধ হয়েছেই। স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতা বাবুলকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা মাহবুব আলমগীর আলো, সদর উপজেলার বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ভিপি জসিম উদ্দিন, নোয়াখালী পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ড বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক সাহাব উদ্দিনসহ ১৩ জন নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। সংঘর্ষে আহত জেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু হাসান নোমান জানান, দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গ্রেপ্তারি পরোয়ানার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে নোয়াখালীতে আমরা কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও দল পুনর্গঠনের সমন্বয়ক মো. শাহজাহানের নেতৃত্বে একটি শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভ মিছিল বের করি। মিছিলটি রশিদ কলোনি মোড় থেকে বের হলে পুলিশ বিনা উসকানিতে আমাদের ওপর হামলা করে। এতে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের ৫০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা মাহবুব আলমগীর আলো, সদর উপজেলার বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ভিপি জসিম উদ্দিনসহ ১৩ জন নেতাকর্মীকে আটক করে। সুধারাম মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আনোয়ার হোসেন জানান, মিছিল থেকে পুলিশের ওপর ইটপাটকেল নিক্ষেপ করায় পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে কয়েক রাউন্ড শটগানের ফাঁকা গুলি নিক্ষেপ করেছে। এসময় আইনশৃঙ্খলায় বাধা দেয়ায় কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে। এদের বিরুদ্ধে অভিযানের পর মামলা হবে।

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট থেকে জানান, সিলেটের কোর্টপয়েন্টে বিএনপির কর্মসূচিকে ঘিরে গতকাল দুপুরে উত্তেজনা বিরাজ করে। এ সময় পুলিশ ছাত্রদলের কর্মীদের ওপর লাঠিচার্জ চালিয়েছে। এ সময় ধাওয়া করে ছাত্রদলের তিন কর্মীকে আটক করে নিয়ে যায়। পরে অবশ্য সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপির নেতাদের নগরীর জিন্দাবাজার পর্যন্ত মিছিল করতে দিয়েছে পুলিশ। বিএনপির কর্মসূচিকে ঘিরে গতকাল সকাল থেকে সিলেট নগরীতে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। নগরীতে বিপুলসংখ্যক পুলিশ মোতায়েন ছিল। এর মধ্যে পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে নগরীর বিভিন্ন এলাকায় যুবদল ও ছাত্রদলের নেতারা বিক্ষোভ মিছিল করেছে। তাদের মিছিলকে কেন্দ্র করে নগরীতে উত্তেজনা দেখা দেয়। এ অবস্থায় বেলা দেড়টায় নগরীর কোর্ট পয়েন্ট এলাকা থেকে মিছিল বের করার ঘোষণা দেয়। মিছিলের আগেই বিএনপির নেতাকর্মীরা গিয়ে পার্শ্ববর্তী কালেক্টরেট মসজিদে জোহরের নামাজে অংশ নেন। নামাজ চলাকালে বাইরে দাঁড়িয়েছিলেন সিলেটের কোতোয়ালি থানার এসি, ওসিসহ পুলিশ দল। এ সময় ছাত্রদলের ১৫-২০ জন কর্মী কোর্টপয়েন্টে এসে অবস্থান নিলে পুলিশ তাদের তাড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করে। পুলিশের কথায় না সরায় কোতোয়ালি থানার এসি তাদের ওপর চড়াও হন। একপর্যায়ে তাদের ধাওয়া করেন। ধাওয়ার মুখে ছাত্রদল কর্মীরা কালেক্টরেট মসজিদের ভেতর দিয়ে পালিয়ে যায়। পুলিশ এ সময় ছাত্রদলের তিন কর্মীকে শিবির সন্দেহে গ্রেপ্তার করে নিয়ে যায়। এদিকে- নামাজের পর বিএনপির কর্মীরা মসজিদের সামনে থেকে মিছিল বের করার চেষ্টা চালায়। এ সময় তাদের বাধা প্রদান করেন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। পরে অবশ্য আলোচনার ভিত্তিতে পুলিশ তাদের নগরীর জিন্দাবাজার এলাকা পর্যন্ত অনুমতি দিলে বিএনপি সিলেট জেলা ও মহানগরের কর্মীরা মিছিল করে। এদিকে- মহানগর পুলিশের এডিসি জেদান আল মুছা গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন- শিবির সন্দেহে ওই সময় দুইজনকে আটক করা হয়েছিল। তাদের ছেড়ে দেয়ার প্রক্রিয়া চলছে বলে জানায় পুলিশ। এদিকে মিছিল পরবর্তী সভায় বিএনপি সিলেট জেলা ও মহানগর নেতৃবৃন্দ বলেছেন- গণতন্ত্রের ফিনিক্স পাখি আপসহীন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে নিয়ে কোনো ষড়যন্ত্র বরদাশত করা হবে না। বিএনপি চেয়ারপার্সন ও ৩ বারের সাবেক সফল প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি সরকারের বাকশালী রাজনৈতিক চরিত্রের নগ্ন বহিঃপ্রকাশ। মিছিল পরবর্তী সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সিলেট জেলা সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীম, মহানগর সভাপতি নাসিম হোসাইন, জেলা সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদ, জেলা সহ-সভাপতি একেএম তারেক কালাম, হাজী শাহাব উদ্দিন, মহানগর সহ-সভাপতি সালেহ আহমদ খসরু, জেলা সহ-সভাপতি জালাল উদ্দিন চেয়ারম্যান, মহানগর সহ-সভাপতি আবদুস ছাত্তার, বাবু নিহার রঞ্জন, জেলা উপদেষ্টা মাজহারুল ইসলাম ডালিম, মহানগর উপদেষ্টা সাইদুর রহমান বুদুরি, জেলা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রব চৌধুরী ফয়সল, মহানগর যুগ্ম সম্পাদক এমদাদ হোসেন চৌধুরী, সাবেক কাউন্সিলার মুজিবুর রহমান শওকত, জেলা যুগ্ম সম্পাদক ইশতিয়াক আহমদ সিদ্দিকী, ময়নুল হক, জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কাশেম, মহানগর সাংগঠনিক সম্পাদক মুকুল মোর্শেদ, জেলা বিএনপি নেতা কামরুল হাসান শাহীন, মহানগর দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ রেজাউল করিম আলো, জেলা দপ্তর সম্পাদক অ্যাডভোকেট মো. ফখরুল হক, মহানগর প্রচার সম্পাদক শামীম মজুমদার, প্রকাশনা সম্পাদক জাকির মজুমদার, জেলা প্রকাশনা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আল আসলাম মুমিন, আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মুজিবুর রহমান, শ্রম বিষয়ক সম্পাদক সুরমান আলী, মহানগর শ্রম বিষয়ক সম্পাদক ইউনুছ মিয়া, জেলা স্বেচ্ছাসেবক বিষয়ক সম্পাদক লায়েছ আহমদ, মহানগর যুব বিষয়ক সম্পাদক মির্জা বেলায়েত হোসেন লিটন ও হাবিব আহমদ চৌধুরী শিলু, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক আক্তার হোসেন মিন্টু, জেলা সমবায় বিষয়ক সম্পাদক লিলু মিয়া চেয়ারম্যান, অর্থনীতি বিষয়ক সম্পাদক মশিকুর রহমান মহি, তাঁতী বিষয়ক সম্পাদক ওহিদ তালুকদার, মহানগর পরিবার কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক লল্লিক আহমদ চৌধুরী প্রমুখ।

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি জানান, মৌলভীবাজারে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রশিবির। এ সময় পুলিশ ২ শিবির কর্মিকে আটক করেছে। গতকাল সকাল ১১টার দিকে তাদের আটক করে মডেল থানা পুলিশ।
জানা যায়, জামায়াতে ইসলামির ডাকা হরতালের সমর্থনে গতকাল শহরে বিক্ষোভ মিছিল বের করে ছাত্রশিবির। শহরের পশ্চিমবাজার এলাকা থেকে বের হওয়া মিছিলটি এম সাইফুর রহমান রোডে গিয়ে পুলিশি বাধায় শেষ হয়। এ সময় পুলিশ ২ শিবির কর্মীকে আটক করে। আটককৃতরা হলো- মো. তাজুল ইসলাম ও আক্কাছ মিয়া।
মৌলভীবাজার মডেল থানার ওসি সোহেল আহমদ জানান, শিবির মিছিল বের করলে নাশকতার আশঙ্কায় ২ জনকে আটক করা হয়েছে।

স্টাফ রিপোর্টার, গাজীপুর থেকে জানান, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গাজীপুরে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে জেলা বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠন সমূহ। গতকাল বুধবার সকালে নগরের জয়দেবপুরের রাজবাড়ী রোডের দলের দলীয় কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত সমাবেশে জেলা বিএনপি’র সিনিয়র নেতা মীর হালিমুজ্জামান ননীর সভাপতিত্বে ও জয়নাল আবেদীন তালুকদারের সঞ্চালনায় জেলা বিএনপি’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শিল্পপতি সোহরাব উদ্দিন ও সাখাওয়াত হোসেন সবুজ, সিটির ওয়ার্ড কাউন্সিলর হান্নান মিয়া হান্নু, এডভোকেট মেহেদী হাসান এলিস, সাখাওয়াত হোসেন সেলিম, আবদুুস সামাদ মোল্লা, চেয়ারম্যান কুতুব উদ্দিন, প্রভাষক বশির আহমেদ, নাহিন আহমেদ মমতাজী, হুমায়ুন কবির রাজু প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। তারা বলেন, সরকারীদল তাদের ক্ষমতা চিরস্থায়ী করতে আগামী নির্বাচনকে টার্গেট করে এবং বিএনপি ও জিয়া পরিবারকে ধ্বংস করার লক্ষ্যে ষড়যন্ত্র করছে। তারই ধারাবাহিকতায় একের পর এক মিথ্যা মমলা হচ্ছে। আর মামলা করে, গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে হয়রানি করা হচ্ছে।

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি জানান, লক্ষ্মীপুরে জেলা যুবদল ও ছাত্রদলের ১৫ নেতাকে আটক করছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাতে শহরের পুরাতন পৌরসভার এলাকার একটি চা দোকান থেকে তাদের আটক করা হয়। আটককৃতরা হচ্ছে সদর উপজেলা যুবদলের সভাপতি খালেদ মোহাম্মদ আলী কিরণ, পৌর যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সৌরভ হোসেন ভুলু, জেলা ছাত্রদলের সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক নাদিম মাহমুদ জুয়েল, যুবদল নেতা বেলাল হোসেন, ছাত্রদল নেতা হুমায়ুন কবির, সুবজ, হাসান. মোবারক হোসেন, আরিফ হোসেন, মিনর হোসেন, আলাউদ্দিনসহ ১৫ জন। তবে পুলিশ বলছে, নাশকতার পরিকল্পনা করার অভিযোগে তাদের আটক করা হয়। এ ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে তাদের নিঃশর্ত মুক্তির দাবি করছেন, বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও জেলা বিএনপি’র সভাপতি এবং সাবেক এমপি আবুল খায়ের ভূঁইয়া, কেন্দ্রীয় বিএনপি’র প্রচার সম্পাদক ও সাবেক এমপি শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী,  কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক ও জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক সাহাবুদ্দিন সাবু, জেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট হাসিবুর রহমান, জেলা যুবদলের সভাপতি রেজাউল করিম  লিটন ও জেলা ছাত্রদলের সভাপতি মো. হারুনুর রশিদ। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. লোকমান হোসেন জানান, যুবদল ও ছাত্রদলের নেতারা নাশকতার পরিকল্পনা করছিল এমন খবরের ভিত্তিতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ১৫ জনকে আটক করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

স্টাফ রিপোর্টার, মানিকগঞ্জ থেকে জানান, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে মানিকগঞ্জে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে জেলা বিএনপি।
বিএনপি’র চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও জেলা বিএনপি’র সভাপতি আফরোজা খান রিতার দিক-নির্দেশনায় গতকাল  বেলা ১১টায় জেলা বিএনপি কার্যালয়ে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। জেলা বিএনপি’র সিনিয়র সহ-সভাপতি এডভোকেট মোখসেদুর রহমানের সভাপতিত্বে জেলা বিএনপি’র নির্বাহী কমিটির সদস্য এসএ কবীর জিন্নাহ, জেলা বিএনপি’র সহ-সভাপতি আবদুুল বাতেন, জেলা বিএনপি’র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক তোজাম্মেল হক তোজা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুল কুদ্দুস খান মজলিশ মাখন, সাটুরিয়া উপজেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক বশির উদ্দিন আহমেদ ঠাণ্ডুু, শিবালয় উপজেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক সত্যেন কান্ত পণ্ডিত ভজন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শরিফ ফেরদৌস, যুবদল নেতা কাজী মোস্তাক হোসেন দিপুসহ বিএনপি ও তার অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
বক্তরা বলেন, এই জালিম সরকার দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অন্যায়ভাবে মামলা দিয়ে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে। আগামী ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তারী পরোয়ানা প্রত্যাহার করা না হলে বিএনপি কঠোর আন্দোলনে যাবে।  জেলা বিএনপি’র সভাপতি আফরোজা খান রিতার নেতৃত্বে এ জেলা থেকে দুর্বার আন্দোল গড়ে তোলা হবে।

নেত্রকোনা প্রতিনিধি জানান, নেত্রকোনা জেলা বিএনপি’র উদ্যোগে গতকাল জেলা শহরের ছোটবাজারস্থ দলীয় কার্যালয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
জেলা বিএনপি’র সভাপতি সাবেক এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ উদ্দিন খানের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তৃতা করেন কেন্দ্রীয় বিএনপি’র সদস্য ড. আরিফা জেসমিন নাহীন, জেলা বিএনপি’র সাংগঠনিক সম্পাদক এসএম মনিরুজ্জামান দুদু, যুগ্ম সম্পাদক সালাউদ্দিন খান মিলকী, মশিউর রহমান মশু, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ফরিদ হোসেন বাবু, সাধারণ সম্পাদক অনিক মাহবুব চৌধুরী প্রমুখ।

চিলমারী (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি জানান, বিএনপি’র চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে চিলমারীতে বিক্ষোভ সমাবেশ ও মিছিল করেছে উপজেলা বিএনপি।
কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বুধবার সকালে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে জানিয়ে চিলমারী উপজেলা বিএনপি’র উদ্যোগে দলীয় কার্যালয় থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে চিলমারী ডিগ্রি কলেজ মোড়ে অনুষ্ঠিত এক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি সাবেক এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ আঃ বারী সরকার, সহ-সভাপতি সাহেব আলী, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মতিন শিরিন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক, সাদাকাত হোসেন, ছাত্রদলের আসাদুজ্জামান বাবু, ইয়াকুদ সাদ্দাৎ স্বাক্ষর, যুবদলের তাইবুর রহমান, মো. লোকমান হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক দলের বাবু প্রমুখ।
বিবৃতিতে নেতারা বলেন, খালেদা জিয়াসহ দলের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে আর বিভিন্নভাবে হয়রানি করার চেষ্টা করা হলে এর পরিণতি ভালো হবে না। উল্লেখ্য ২০১৫ সালের ৩রা ফেব্রুয়ারি কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থানাধীন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের ফুড প্যালেস হোটেলের সামনে চলন্ত বাসে পেট্রোল বোমা হামলার মামলায় খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে কুমিল্লার আদালত।

নাগরপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি জানান, বিএনপি’র চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা  জারির প্রতিবাদে টাঙ্গাইলের নাগরপুরে ছাত্রদলের বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ মিছিল পুলিশি বাধায় পণ্ড হয়ে গেছে। বুধবার সকালে উপজেলা ছাত্রদলের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয় থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি বের হলে নাগরপুর থানা পুলিশ বাধা  দেয়। পরে দলীয় নেতা-কর্মীরা উপজেলা মোড়স্থ দলীয় কার্যালয়ের সামনে প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে। এ সময় আায়োজিত প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মো. রফিজ উদ্দিন, বিএনপি’র যুগ্ম-আহ্বায়ক আহাম্মদ আলী রানা, উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদ, রফিকুল ইসলাম দিপন, উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক জিহাদ হোসেন ডিপটি, কলেজ  ছাত্রদলের সভাপতি জাহিদ হাসান, সাধারণ সম্পাদক মীর খালিদ মাহবুব রাসেল প্রমুখ।

আত্রাই (নওগাঁ) প্রতিনিধি জানান, বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা প্রত্যাহারের প্রতিবাদে পুলিশি বাধা উপেক্ষা করে নওগাঁর আত্রাইয়ে গতকাল সকালে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে আত্রাই থানা বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠন। থানা বিএনপি’র আহ্বায়ক শেখ রেজাউল ইসলাম রেজুর নেতৃত্বে আত্রাই রেলওয়ে স্টেশন চত্বর থেকে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে আত্রাই-ভবানীগঞ্জ সড়কের তিন মাথা মোড়ে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। আত্রাই থানা বিএনপি’র আহ্বায়ক শেখ রেজাউল ইসলাম রেজুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন,  আত্রাই থানা বিএনপি’র আহ্বায়ক কমিটির অন্যতম সদস্য তছলিম উদ্দিন, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবদুল মান্নান, আবদুুল হাকিম, আবদুল মান্নান সরদার, একে আজাদ পারভেজ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান একরামুল বারী রুঞ্জু, রফিকুল ইসলাম রফিক, থানা যুবদল সাধারণ সম্পাদক পারভেজ ইকবাল, আজাদ আলী, যুবনেতা নাসির উদ্দিন চঞ্চল, আশরাফুল ইসলাম লিটন, থানা ছাত্রদলের আহ্বায়ক রায়হান কবির রতন, থানা ছাত্র নেতা নসিব, সেন্টু, মহিলা নেত্রী মোছা. মেরিনা বেগমসহ বিএনপি ও এর সকল অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

সাদুল্যাপুর (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি জানান, বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মিথ্যা গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে গাইবান্ধায় বিএনপি’র বিক্ষোভ মিছিলে সাদুল্যাপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি ছামছুল হাসান ছামছুলকে আটক করেছে পুলিশ। এসময় লাঠিচার্জ, টিয়ারশেল নিক্ষেপ করেছে পুলিশ। এতে ১৫ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। গতকাল দুপুরে গাইবান্ধা জেলা বিএনপির উদ্যোগে জেলা বিএনপির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মইনুল হাসান সাদিকের নেতৃত্বে একটি বিরাট বিক্ষোভ মিছিল সার্কুলার রোডের দিকে রওনা হওয়ার প্রাক্কালে পুলিশি বাধা অতিক্রম করলে পুলিশ মিছিলটি পণ্ড করার লক্ষ্যে প্রথমে লাঠিচার্জ পরে কয়েক রাউন্ড টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এ ঘটনায় কেন্দ্রীয় বিএনপি’র কার্যনিবাহী কমিটির সদস্য অধ্যাপক আমিনুল ইসলাম, জেলা বিএনপির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মইনুল হাসান সাদিক, সাধারাণ সম্পাদক মাহামুদুন্নবী টিটুল, শহর বিএনপির সভাপতি শহীদুজ্জামান শহীদ, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মোশাররব হোসেন বাবুসহ জেলা থানার নেতাকর্মীসহ ১৫ জন আহত হন। এই ঘটনায় সাদুল্যাপুর উপজেলা বিএনপির সভাপতি ছামছুল হাসান ছামছুলকে আটক করেছে পুলিশ।

স্টাফ রিপোর্টার, ময়মনসিংহ থেকে জানান, কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল দুপুরে ময়মনসিংহ দক্ষিণ জেলা বিএনপি বিক্ষোভ ও প্রতিবাদ সমাবেশে করেছে। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন জেলার সাধারণ সম্পাদক আবু ওয়াহাব আকন্দ।
প্রতিবাদ সমাবেশে বক্তব্য দেন আলমগীর মাহমুদ আলম, আলহাজ কাজী রানা, কায়কোবাদ মামুন, রতন আকন্দ, শেখ আজিজুল হক, নাজিম উদ্দিন খান, খন্দকার মাসুদ, জগলুল হায়দার, ফরিদা ইয়াসমিন পারভীন, রিপন তালুকদার, জসিম উদ্দিন জনি, তাহমিনা বানু, শামসুল আলম উজ্জ্বল, জি.এস. মাহবুব, মাওলানা আরিফ রব্বানী, মাওলানা শাখাওয়াত হোসেন মোমেন প্রমুখ।

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা থেকে জানান, খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে নাশকতা মামলায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির তীব্র নিন্দা জানিয়ে খুলনা বিএনপি নেতৃবৃন্দ বলেছেন, খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে দেশে আসতে দেয়া না হলে গণ-অসহযোগ আন্দোলনের মাধ্যমে সারা দেশ অচল করে দেয়া হবে। দলীয় কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, মিছিল আর স্লোগানের সময় শেষ। এখন সত্যিকার অর্থেই বুকের রক্ত দিয়ে দেশ ও গণতন্ত্র রক্ষার জন্য প্রতিটি কর্মীকে চূড়ান্ত প্রস্তুতি নিতে হবে। বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও খুলনা মহানগর সভাপতি সাবেক এমপি নজরুল ইসলাম সভাপতিত্বে ও বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান মুরাদের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য রাখেন মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও কেসিসির মেয়র মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, সাহারুজ্জামান মোর্ত্তজা, কাজী সেকেন্দার আলী ডালিম, মীর কায়সেদ আলী, শেখ মোশারফ হোসেন, জাফরউল্লাহ খান সাচ্চু, শেখ খায়রুজ্জামান খোকা, অ্যাডভোকেট বজলুর রহমান, রেহানা আক্তার, শাহজালাল বাবলু, স ম আব্দুর রহমান, শেখ ইকবাল হোসেন, অ্যাডভোকেট ফজলে হালিম লিটন, শেখ জাহিদুর রহমান, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, শেখ আমজাদ হোসেন, অধ্যাপক আরিফুজ্জামান  অপু, সিরাজুল হক নান্নু, মাহবুব কায়সার, নজরুল ইসলাম বাবু, শেখ হাফিজুর রহমান, মেহেদী হাসান দীপু, মহিবুজ্জামান কচি, শাহিনুল ইসলাম পাখী, শফিকুল আলম তুহিন, আজিজুল হাসান দুলু, এহতেশামুল হক শাওন, শেখ সাদী, ইউসুফ হারুন মজনু, সাজ্জাদ হোসেন তোতন, সাজ্জাদ আহসান পরাগ, মুর্শিদ কামাল, শামসুজ্জামান চঞ্চল, নাজমুল হুদা চৌধুরী সাগর, কামরান হাসান, শরিফুল ইসলাম বাবু, হেলাল আহমেদ সুমন, নাজিরউদ্দিন আহমেদ নান্নু প্রমুখ। সমাবেশের শুরুতে পবিত্র কুরআন তেলাওয়াত করেন মাওলানা আব্দুল গফফার।

রূপগঞ্জ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার প্রতিবাদে কেন্দ্রিয় কর্মসূচি অনুযায়ী নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে উপজেলা ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করেছে। বুধবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলা ছাত্রদল নেতা আবু মোহাম্মদ মাসুমের নেতৃত্বে উপজেলার এশিয়ান হাইওয়ে সড়কের কাঞ্চন সেতু পশ্চিমপাড়ে ব্রাক্ষ্মণখালী এলাকায় এ বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা ছাত্রদল নেতা অ্যাডভোকেট ফাইজুর রহমান বাবলু, আজিম সরকার, মো. সোহেল, সুলতান মাহমুদ, আহমেদ রাজিব, মোদাচ্ছের মোল্লা,  ওমর ফারুক আপন, শুক্কুর মাহমুদ, শাহিন সুমন, মেহেদী হাসান রিপন, আল আমীন, মাসুম বিল্লাহ, সুমন ব্যাপারী, সৈয়দ গোলাপ, নাসিম হোসেন প্রিন্স, রাতুল আহমেদ সবুজ, রুবেল মাহমুদ, মামুন রহমান, আক্তার  হোসেন, নাদিম মাহমুদ, সাদিক রহমান প্রমুখ।

শ্রীনগর (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে উপজেলা বিএনপি। গতকার বিকাল ৩টায় শ্রীনগর বাজারের যুবদল কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তারা খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে দায়ের করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান। এর আগে উপজেলা বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা ধাইসার এলাকা থেকে মিছিল নিয়ে শ্রীনগর বাজার প্রদক্ষিণ করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ মমিন আলী, ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ সেলিম হোসেন খান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জাহানারা বেগম, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. দেলোয়ার হোসেন, মতিউর রহমান মতিন, দিদারুল ইসলাম অভি, রাজু আহমেদ, আ. হাই তালুকদার প্রমুখ।

স্টাফ রিপোর্টার, নারায়ণগঞ্জ থেকে জানান, দেশব্যাপী কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে নারায়ণগঞ্জে গতকাল পৃথকভাবে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে জেলা বিএনপি, মহানগর বিএনপি ও আইনজীবী ফোরাম। বিকালে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের সামনে জেলা বিএনপির সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা কাজী মনিরুজ্জামনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদব অধ্যাপক মামুন মাহমুদ, সাবেক এমপি আতাউর রহমান খান আঙ্গুর, সদর উপজেলার চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আবুল কালাম আজাদ, সোনারগাঁও উপজেলা চেয়াম্যান আজহারুল ইসলাম মান্নান, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি খন্দকার আবু জাফর, মনিরুল ইসলাম রবি, লুৎফর রহমান খোকা, সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ হাসান রোজেল, মাসুকুল ইসলাম রাজিব, রুহুল আমিন সিকদার, জেলা মহিলা দলের আহবায়ক নুরুন্নাহার, যুগ্ম আহ্বায়ক রহিমা শরীফ মায়া, হাবিবুর রহমান হাবু, আশরাফুল হক রিপন প্রমুখ।

স্টাফ রিপোর্টার, মুন্সীগঞ্জ থেকে জানান, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কুমিল্লার আদালতে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে মুন্সীগঞ্জ ও শ্রীনগরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে স্থানীয় বিএনপি। বুধবার বেলা সাড়ে ১০টার দিকে মুক্তারপুর পুরাতন ফেরিঘাট এলাকায় ও বিকাল ৩টায় শ্রীনগর উপজেলা সদরে এ বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ হয়। সকালে মুন্সীগঞ্জ সদরের মুক্তারপুরে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে থেকে মিছিল বের করে ব্রিজের সামনে আসলে পুলিশি বাধায় পণ্ড হয়ে যায়। পরে মুক্তারপুর স্ট্যান্ডের সামনে সমাবেশ করে বিএনপি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির চেয়ারপাসনের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য, জেলা বিএনপির সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান রতন, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল কুদ্দুস ধীরেন, শহর বিএনপির সভাপতি একেএম ইরাদত মানু, জেলা যুবদলের সভাপতি তারিক কাশেম খান মুকুল প্রমুখ। বিকেল ৩টায় শ্রীনগর ধাইসার স্ট্যান্ড থেকে উপজেলা বিএনপির মিছিল বের করে উপজেলা সদর প্রদক্ষিণ শেষে দলীয় কার্যালয় চত্বরে প্রতিবাদ সভা করেন। এ সময় বক্তব্য দেন, শ্রীনগর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান সেলিম হোসেন খান, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান জাহানারা বেগম, উপজেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান ও উপজেলা শ্রমিক দলের সভাপতি দিদারুল ইসলাম অভি প্রমুখ।
মাধবপুর (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে মাধবপুর পৌর ছাত্রদল।
বুধবার দুপুরে পৌর ছাত্রদলের আহ্বায়ক আলমগীর কবিরের নেতৃত্বে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়। মিছিলটি পৌর শহরের বিভিন্ন রাস্তা প্রদক্ষিণ করে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদল নেতা আফজাল পাঠান, শেখ জাহান রনি, রিংকু দেবনাথ, রিয়াজ আহাম্মেদ, খান মো. সোহেল, সাব্বির হাসান জুয়েল, রুবেল ইসলাম রিফাত প্রমুখ।

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি জানান, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরওয়ানা জারির প্রতিবাদে মৌলভীবাজারে বিএনপি, স্বেচ্ছাসবক দল ও ছাত্রদল পৃথক পৃথক বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে।
গতকাল বিকাল ৪টায় জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমানের নেতৃত্বে মৌলভীবাজার শহরের টিসি মার্কেট থেকে মিছিল শুরু হয়ে চৌমোহনায় গিয়ে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। মিছিলে এই সময় আরো ছিলেন জেলা বিএনপির সদস্য মোশাররফ হোসেন বাদশা, যুবদলের মুহিতুর রহমান হেলাল, ছাত্রদলের গাজী মারুফসহ অন্যরা। অপর দিকে দুপুরে শহরের পুরাতন হাসপাতাল সড়ক থেকে স্বেচ্ছাসেবক দল বিক্ষোভ মিছিল বের করে। শহরের সিকান্দর আলী সড়কে এসে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা জিএম মুক্তাদির রাজুর সভাপতিত্বে ও সৈয়দ যুবেল আহমদের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য দেন, বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ছাত্রদলের সভাপতি ফয়সল আহম্মদ, ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল আলম নোমান, সাংগঠনিক সম্পাদক জহিরুল ইসলাম মামুন, ফরিদ আহমদ প্রমুখ। অন্যদিকে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহসাংগঠনিক সম্পাদক সিলেট বিভাগীয় ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক, মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক জাকির হোসেন উজ্জ্বলের সভাপতিত্বে মিছিল পরবর্তী সমাবেশে বক্তব্য দেন যুগ্ম আহ্বায়ক সরওয়ার মজুমদার ইমন, আলিম হোসেন মিরু, সিরাজুল ইসলাম পিরন, পলিটেকনিকেল ছাত্রদলের আহ্বায়ক মো. সাইফুর রহমান প্রমুখ।

About The Author

Related posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *