শিরোনাম

বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রে চলছে সাইফুল রাজুর প্রথম একক “আলোকচিত্র প্রদর্শনী” অনুষ্টান ।

| ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ১০:৩৩ অপরাহ্ণ

বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রে   চলছে সাইফুল রাজুর  প্রথম একক “আলোকচিত্র প্রদর্শনী” অনুষ্টান ।

ছবিঃ শেখ সাদি

শেখ সাদি, স্বদেশ নিউজ২৪ঃ সাইফুল রাজু, তৃণমূল থেকে উঠে আসা এক সংগ্রামী তরুণ। সদালাপী, মিষ্টভাষী, নিরহংকারী। সহজেই মিশে যেতে পারে যেকোনো শ্রেণী-পেশার মানুষের সাথে। অজোপাড়া গাঁয়ের গন্ডি পেরিয়ে যান্ত্রিক শহরের ছোট-বড় সবার কাছেই উদীয়মান ফটোগ্রাফার হিসেবে পরিচিত। তিনি ছোটবেলা থেকেই ছবি তুলতে ভালোবাসেন। কাকডাকা ভোরে চোখে বিভোর স্বপ্ন আর পিঠে ক্যামেরার ব্যাগ নিয়ে বাসা থেকে বের হন। ছুটে যান গন্তব্যে। যে গন্তব্যের কোনো সীমারেখা নেই। সারাদেশেই তিনি ছুটে বেড়ান। ছবির খোঁজে বেশ কয়েকবার দেশের বাইরেও গিয়েছেন। প্রকৃতির অপার সৌন্দর্যকে উপভোগ করেছেন। সেইসঙ্গে সৌন্দর্যের স্মারক হিসেবে নিজ ক্যামেরায় তুলে রেখেছেন তার সারাংশ। গত ৫ বছর ধরে ছবি তোলাকেই ধ্যান-জ্ঞান করে নিয়েছেন তরুণ এই আলোকচিত্রী। তিনি লেন্সে চোখ রেখে তুলে আনতে ভালোবাসেন প্রকৃতি-জগত-জীবনের নানা দুর্লভ চিত্র। একাধিকবার দেশ-বিদেশের বিভিন্ন স্থানে চিত্র প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে সাফল্যের মুকুটও অর্জন করেছেন। কাল সোমবার শুরু হচ্ছে তরুণ আলোকচিত্রী সাইফুল রাজুর একক আলোকচিত্র প্রদর্শনী। ‘স্বপ্ন বুনি আলোছায়ায়’ প্রতিপাদ্য নিয়ে এ প্রদর্শনী শেষ হবে মঙ্গলবার। ঢাকা বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্রে শুরু হতে যাওয়া এ প্রদর্শনীর শিরোনাম ‘স্বপ্নের প্রতিচ্ছবি-২’। দুই দিনব্যাপী এই প্রদর্শনী চলার কথা থাকলেও সবার অনুরোধে আগামিকাল কে ও  বিকাল ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত সর্বসাধারণের জন্য উন্মুক্ত থাকবে। এ প্রদর্শনীতে স্থান পাচ্ছে দেশের বিভিন্ন জেলার ঐতিহাসিক ও দর্শনীয় স্থান, হতদরিদ্র পথশিশু ও বিভিন্ন শিল্পের শ্রমিকদের যাপিত জীবন, গ্রাম-বাংলার জনজীবন, অপার সৌন্দর্যের হাতছানি ফুল, পাখিসহ প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের নানা চিত্র। ক্রিড়া ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনের একজন সক্রিয় কর্মী এবং তরুণ নির্মাতা হিসেবে সাইফুল রাজু ইতিপূর্বে বেশ কয়েকটি প্রামাণ্যচিত্র, মিউজিক ভিডিও এবং শর্ট ফিল্ম নির্মাণ করেছেন। তিনি ২০১৬ সালে ‘লাল সবুজের বাংলাদেশ’ শিরোনামে ক্রিকেটের গান নিয়ে একটি মিউজিক ভিডিও নির্মাণ করে সাড়া দেশে বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করতে সক্ষম হন। সম্প্রতি প্রজন্ম প্রোডাকশনের ব্যানারে বিভিন্ন টেলিভিশন চ্যানেলের জন্য একাধিক নাটক নির্মাণে ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি। গণমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎতকারে তরুণ আলোকচিত্রী সাইফুল রাজু বলেন, ‘একটা সময় শখের বশে ছবি তুলতাম। আর এখন ছবি তোলা আমার নেশা। বলতে গেলে বর্ষপঞ্জিকায় এমন কোনো দিন নেই, যেদিন আমার ক্যামেরার সাটার ক্লিক হয় না। বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের ছবি তোলার চেয়ে অবহেলিত ও হতদরিদ্র মানুষের দুঃখগাঁথা জীবনের ছবি তোলাকেই আমি প্রাধান্য দেই। পাশাপাশি প্রাকৃতিক সৌন্দর্যকে ক্যামেরাবন্দী করতেও কালক্ষেপণ করি না। ছবির খোঁজে আমি ছুটে বেড়াই যত্রতত্র। যাবতীয় বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে বাবার আশির্বাদ সাথে নিয়ে আমার এ পর্যন্ত আসা। আমি আমার ক্ষুদ্রতম সাফল্যের সবটুকু বাবাকে উৎসর্গ করছি। সবসময় চেষ্টা করছি শুভাকাঙ্ক্ষীদেরকে ভালো কিছু উপহার দিতে। গত বছরের বইমেলায় আমি ‘স্বপ্নের প্রতিচ্ছবি’ শিরোনামে আলোকচিত্রের একটি এ্যালবাম প্রকাশ করেছি। এরই ধারাবাহিকতায় এবার ‘স্বপ্নের প্রতিচ্ছবি-২’ শিরোনামে একক আলোকচিত্র প্রদর্শনীর আয়োজন করছি। আশা করছি সবাই তা স্বাচ্ছন্দ্যে উপভোগ করবেন। আর অতীতের মত পাশে থেকে আমাকে অনুপ্রেরণা দিয়ে যাবেন।’ উল্লেখ্য, ১৯৯৬ সালে ইতিহাস-ঐতিহ্যের লীলাভূমি কুমিল্লার লাকসাম উপজেলার গুন্তি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন সাইফুল রাজু। প্রয়াত পিতা আবুল খায়েরের ৫ সন্তানের সংসারে তিনি সর্বকনিষ্ঠ। তিনি বাংলাদেশ কম্পিউটার ইনষ্টিটিউটে (বিসিআই) কম্পিউটার সাইন্স ইঞ্জিনিয়ারিং-এর শেষ বর্ষে অধ্যয়নরত। ২০১৩ সালে ‘সাপ্তাহিক সময়ের দর্পণ’ পত্রিকার মাধ্যমে ফটো সাংবাদিকতা শুরু করেন সাইফুল রাজু। পরবর্তীতে ‘সাপ্তাহিক নকশী বার্তা’, ‘কুমিল্লার বার্তা’, ‘দৈনিক প্রতিদিনের সংবাদ’সহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রতিবেদক ও আলোকচিত্রী হিসেবে কাজ শুরু করেন। বর্তমানে তিনি ‘সবনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম’-এর নির্বাহী সম্পাদক, ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ ফোরাম’-এর তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এবং ‘ফোকাস মিডিয়া বিডি’র সহকারী পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়াও পথশিশুদের কল্যাণার্থে তার স্বগঠিত সংগঠন ‘নতুন প্রজন্ম ফোরাম’সহ বেশ কয়েকটি সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সাথেও তিনি সম্পৃক্ত রয়েছেন।

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

চিরতার ১২ গুণ-ডা. আলমগীর মতি

০৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭

ফেইজবুকে আমরা

  • পুরনো সংখ্যা

    SatSunMonTueWedThuFri
    21222324252627
    282930    
           
      12345
    27282930   
           
          1
           
          1
    9101112131415
    30      
         12
           
          1
    2345678
    30      
       1234
    262728293031 
           
         12
           
      12345
    2728293031  
           
    891011121314
    2930     
           
        123
           
        123
    25262728   
           
    28293031   
           
          1
    2345678
    9101112131415
    3031     
          1
    30      
      12345
    272829    
           
        123
           
    28