1. ccadminrafi@gmail.com : Writer Admin : Writer Admin
  2. aktarbd239@gmail.com : আক্তারুজ্জামান, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর : আক্তারুজ্জামান, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর
  3. arifkhan.freshmedia@gmail.com : আরিফ, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর: : আরিফ, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর:
  4. esmatsweet@gmail.com : ইসমত দোহা, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান : ইসমত দোহা, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান
  5. 123junayedahmed@gmail.com : জুনায়েদ আহমেদ, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর : জুনায়েদ আহমেদ, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর
  6. swadesh.tv24@gmail.com : Newsdesk ,স্বদেশ নিউজ২৪.কম : Newsdesk ,স্বদেশ নিউজ২৪.কম
  7. swadeshnews24@gmail.com : নিউজ ডেস্ক, স্বদেশ নিউজ২৪.কম, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর: : নিউজ ডেস্ক, স্বদেশ নিউজ২৪.কম, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর:
  8. hamim_ovi@gmail.com : Rj Rafi, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান : Rj Rafi, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান
  9. skhshadi@gmail.com : শেখ সাদি, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান: : শেখ সাদি, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান:
  10. srahmanbd@gmail.com : এডমিন, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান : এডমিন, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান
মুনিয়ার মৃত্যু: নুসরাতের অভিযোগ অসত্য প্রমাণিত - Swadeshnews24.com
শিরোনাম
ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান ইভ্যালির সিইও রাসেল ও তার স্ত্রী গ্রেফতার দুই বর্ষের শিক্ষার্থীদের জন্য হল খুলছে ৫ই অক্টোবর, লাইব্রেরী ২৬শে সেপ্টেম্বর গড়পড়তা কাজ আর করতে চাই না -ইরফান সাজ্জাদ একঝাঁক তারকা নিয়ে শুরু হচ্ছে ‘সোনারচর’ সিনেমার শুটিং ফের অনুদানের সিনেমায় স্পর্শিয়া বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খুলতে বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী-ভিসিরা দর্শকপ্রিয় অভিনেতা সাদেক বাচ্চুর প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী মোদী-বাইডেনের বৈঠকে গুরুত্ব পাবে তালেবানের উত্থান সাতক্ষীরায় চাঞ্চল্যকর ফোর মার্ডার মামলায় ঘাতক ভাইয়ের ফাঁসি শিক্ষা কার্যক্রমকে সময়োপযোগী করা অপরিহার্য: প্রধানমন্ত্রী স্কুল-কলেজে গভর্নিং বডি-ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচনের অনুমতি প্রবাসী নারীর ফাঁদে পড়ে ৫৫ লাখ টাকা খোয়ালেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী বেঁচে থেকে কোনো লাভ নেই আমার: দীপিকা আত্মবিশ্বাস নিয়েই বিশ্বকাপে যাব: সাকিব চলচ্চিত্র পরিচালক হুমায়ূন কবির আর নেই

মুনিয়ার মৃত্যু: নুসরাতের অভিযোগ অসত্য প্রমাণিত

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২২ জুলাই, ২০২১
  • ৫৭ Time View

মুনিয়ার আত্মহত্যা প্ররোচনার মামলায় গুলশান থানা পুলিশ চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেছে আদালতে। আগামী ২৯ জুলাই এই প্রতিবেদনের ওপর শুনানি অনুষ্ঠিত হবে।

পুলিশের রিপোর্টে বলা হয়েছে যে, মুনিয়ার আত্মহত্যার প্ররোচনার জন্য যাকে আসামি অভিযুক্ত করা হয়েছে তিনি আদতেই অভিযুক্ত নন এবং আত্মহত্যার প্ররোচনার কোনো ঘটনা ঘটেনি।

উল্লেখ্য যে, গত ২৬ এপ্রিল গুলশানের একটি বাড়িতে মারা যান মুনিয়া। মুনিয়ার মৃত্যুর পরপরই তড়িঘড়ি করে তার বোন নুসরাত তানিয়া আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগে একটি মামলা দায়ের করেন গুলশান থানায়। অভিযোগ একজনকেই তিনি অভিযুক্ত করেন। এরপর পুলিশ দীর্ঘ তদন্ত করে। প্রায় তিন মাস তদন্ত করে পুলিশ চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেছে, যে চূড়ান্ত প্রতিবেদনে এই আত্মহত্যা প্ররোচনার জন্য সংশ্লিষ্ট অভিযুক্তর কোনো দায় পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য যে, নুসরাত শুরু থেকেই এই মামলাটি করেছিলেন উদ্দেশ্যমূলকভাবে এবং মামলা করতে গিয়ে তিনি অনেক প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছিলেন বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিশেষ করে যে সমস্ত অভিযোগ তিনি দিয়েছিলেন সেই সমস্ত অভিযোগ সবই দুরভিসন্ধিমূলক, প্রতারণামূলক এবং বিশেষ ব্যক্তিকে হেয়প্রতিপন্ন করার জন্যই করেছিলেন বলে পুলিশি তদন্তে বেরিয়ে এসেছে। নুসরাত এই মামলাকে ব্যবহার করে সরকার এবং বিভিন্ন মহলকে চাপে ফেলার কৌশল গ্রহণ করেছিলেন। এই মামলায় তিনি যে সমস্ত তথ্য-উপাত্ত দিয়েছিলেন তার অধিকাংশই অসম্পূর্ণ, মিথ্যা।

আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আত্মহত্যার প্ররোচনা মামলায় সুনির্দিষ্ট তথ্য-প্রমাণ থাকতে হয়। এই তথ্য-প্রমাণের মধ্যে রয়েছে, যিনি আত্মহত্যা করেছেন তার সঙ্গে সর্বশেষ কার কথোপকথন হয়েছে, তিনি সরাসরি ওই ব্যক্তির কাছে গিয়েছিলেন কি না। যার বিরুদ্ধে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ, তিনি সরাসরি আত্মহত্যাকারীর সঙ্গে দেখা করেছিলেন কি না, কথা বলেছিলেন কি না এবং এমন কোনো আলামত যেটি সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করে যে আত্মহত্যাকারী ব্যক্তি ওই বিশেষ ব্যক্তির প্ররোচনায় আত্মহত্যা করেছে। কিন্তু মুনিয়ার মামলায় এ ধরনের কোনো বিষয় ছিল না। বরং মুনিয়ার বোন মুনিয়াকে বিভিন্নভাবে ব্যবহার করেছিলেন অনৈতিক কর্মকাণ্ডের জন্য এবং সে কারণে মুনিয়ার মধ্যে এক ধরনের হতাশা তৈরি হয়েছিল।

পুলিশের তদন্ত প্রতিবেদনে দেখা যাচ্ছে যে, ২৬ এপ্রিল মুনিয়া মারা যাওয়ার পর প্রথম সেখানে আসেন মুনিয়ার বড় বোন নুসরাত তানিয়া। নুসরাত তানিয়াকে মুনিয়াই ডেকে নিয়ে আসেন; কিন্তু সেই সময় নুসরাত তানিয়া বারবার বিলম্ব করছিলেন। কেন বিলম্ব করেছিলেন সেটি একটি বড় প্রশ্ন হয়ে উঠেছে। তা ছাড়া, নুসরাত তানিয়া যে সমস্ত অভিযোগ করেছেন সে সমস্ত অভিযোগের কোনো সত্যতা পুলিশি তদন্তে পাওয়া যায়নি। একই সঙ্গে মুনিয়ার বোন যে সমস্ত তথ্য-উপাত্ত আলামত হিসেবে দিয়েছেন তার অধিকাংশই মিথ্যা, বানোয়াট এবং ভিত্তিহীন প্রমাণিত হয়েছে।

মুনিয়ার আত্মহত্যার ঘটনার পরপরই নুসরাত মাঠে নামেন এবং তিনি বিভিন্ন মহলকে নিয়ে একের পর এক সংবাদ সম্মেলন এবং নানা রকম টকশোতে অংশগ্রহণ করে সরকারের বিরুদ্ধে এক ধরনের প্রচারণায় অংশগ্রহণ করেছিলেন। কিন্তু পুলিশের তদন্তে উঠে এসেছে, নুসরাত তানিয়া ব্যক্তিগত অভিলাষ চরিতার্থ করার জন্য এবং কাউকে ফাঁসিয়ে নিজে লাভবান হওয়ার জন্য বা ব্ল্যাকমেইলিংয়ের জন্যই এ ধরনের মামলা করতে উদ্বুদ্ধ হয়েছিলেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 SwadeshNews24
Site Customized By NewsTech.Com