1. ccadminrafi@gmail.com : Writer Admin : Writer Admin
  2. 123junayedahmed@gmail.com : জুনায়েদ আহমেদ, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর : জুনায়েদ আহমেদ, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর
  3. swadesh.tv24@gmail.com : Newsdesk ,স্বদেশ নিউজ২৪.কম : Newsdesk ,স্বদেশ নিউজ২৪.কম
  4. swadeshnews24@gmail.com : নিউজ ডেস্ক, স্বদেশ নিউজ২৪.কম, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর: : নিউজ ডেস্ক, স্বদেশ নিউজ২৪.কম, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর:
  5. hamim_ovi@gmail.com : Rj Rafi, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান : Rj Rafi, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান
  6. rifatkabir582@gmail.com : রিফাত কবির, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান : রিফাত কবির, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান
  7. skhshadi@gmail.com : শেখ সাদি, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান: : শেখ সাদি, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান:
  8. srahmanbd@gmail.com : এডমিন, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান : এডমিন, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান
এবার ইউএনও’র নদী দখল! - Swadeshnews24.com
শিরোনাম
ভৈরবে বর্ণাঢ্য আনন্দ আয়োজনে নিরাপদ সড়ক চাই এর ২৯তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন মেজবা শরীফের নতুন দুটি গান প্রকাশ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা, দলের পারফরম্যান্স নিয়ে যা বললেন মেসি পাঠ্যসূচিতে সমুদ্রবিজ্ঞান অন্তর্ভুক্তির সুপারিশ স্বামীর বিরুদ্ধে মামলা করার কারণ জানালেন সারিকা বিশ্বকাপের শেষ ষোলোয় উঠল ৪ দল, যার সঙ্গে যে দল খেলবে উত্তরপ্রদেশে আগুন লেগে একই পরিবারের ৬ জন নিহত তিন শ্রেণির মানুষকে করোনার টিকার চতুর্থ ডোজ দেওয়ার সুপারিশ নতুন সিনেমায় চিত্রনায়িকা রাজ রীপা ‘নির্যাতনের’ জবাব আন্দোলনে দেব: ফখরুল এসএসসির ফল প্রকাশ নতুন মার্সিডিজ বেঞ্জ ফিরিয়ে দিলেন আনোয়ার ইব্রাহিম বুবলীকে ইঙ্গিত করে যা বললেন অপু বিশ্বাস ব্রাজিল সমর্থকদের সুখবর দিল রোবট ‘মেসির সঙ্গে লাগতে এসো না’

এবার ইউএনও’র নদী দখল!

  • Update Time : সোমবার, ১৯ মে, ২০১৪
  • ২৯২ Time View

river-up-300x139 বরিশালের বানারিপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সেখানকার সন্ধ্যা নদীর মাঝে তিন একর জমির একটি প্রকল্প চিহ্নিত করে একটি সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে দিয়েছেন। ইউএনও সৈয়দ এজেড মোরশেদ আলী যা করছেন তা গোপন করারও চেষ্টা করেননি। তার সরল স্বীকারোক্তি, ‘আমি আমার নিজের জমির চারপাশে সীমানা চিহ্নিত করেছি। নদীতে চর জেগে উঠছে। যেকোনো মুহূর্তে ভূমিদস্যুরা সেখানে হানা দিতে পারে। তাই নিজের জমি বাঁচাতে আমি এই পদক্ষেপ নিয়েছি’।

তবে ইউএনও নদীতের ‘চর’ জেগে উঠার কথা বললেও বাস্তবে সেখানে চরের কোনো অস্তিত্ব দেখা যায়নি। চারিদিকে শুধু পানি আর পানি।

নিয়ম অনুযায়ী ভূমিদস্যুদের হাত থেকে নদীকে দখলমুক্ত করা ও দখলের হাত থেকে রক্ষা করার দায়িত্ব ইউএনও’র। কিন্তু এখানে ঘটছে তার উল্টো। ইউএনও নিজেই দখল করছেন।

এ ব্যাপারে ইউএনএ জানান, তিনি এই জমি অন্যের কাছে বরাদ্দ দেননি। কারণ তিনি মনে করেন, অন্যের কাছে এটি দেয়া হলে তারা এর সঠিক ব্যবহার করতে পারবেন না।

নদীর মাঝে যে সাইনবোর্ড টানা হয়েছে তা লেখা রয়েছে, ‘‘নির্ধারিত স্থান: সিনিয়র’স পার্ক, অবসর কেন্দ্র, রেস্ট হাউস, ফুড কর্নার, মসজিদ ও মন্দির’’।

ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় এমপির সঙ্গে কথা বলেই তিনি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলে জানিয়েছেন ইউএনও সৈয়দ মোরশেদ। তিনি বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে আমি ডিসি ও স্থানীয় এমপির সঙ্গে কথা বলেছি। তারা আমার এই প্রকল্পের বিষয়ে অনুমতি দিয়েছেন এবং সরকারের কাছ থেকে অনুমোদন নিয়ে দিয়েছেন’।

একই সঙ্গে পৌর কর্তৃপক্ষ শিগগিরই এই প্রকল্পের কাজ শুরু করতে পারবেন বলেও তিনি জানান।

এ ব্যাপারে বরিশাল-২ আসনের এমপি তালুকদার ইউনূসের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘ইউএনও আমাকে বলেছেন- ফেরী পারাপারের ক্ষেত্রে সন্ধ্যা নদী বেশ প্রসারিত হয়েছে। সেই সঙ্গে তিনি এই প্রকল্পের কথাও আমাকে বলেছেন’।

তিনি বলেন, ‘এটি খাস জমি। এখানে কোনো প্রকল্প করতে হলে সরকারি অনুমোদনের প্রয়োজন আছে’।

তবে বরিশালের ডিসি মো. শহিদুল আলম জানান, ‘তিনি বিষয়টি জানেন না। সেখানে যে এই ধরনের প্রকল্প কিংবা সীমানা চিহ্নিত করে সাইনবোর্ড টানানো হয়েছে তা তার জানা নেই’।

তিনি বলেন, ‘বানারিপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমাকে বিষয়টি জানাননি। সেখানে যে এই ধরনের একটি প্রকল্পের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে সে বিষয়টি নিয়ে তিনি (সৈয়দ মোরশেদ) কখনো কোনো আলোচনা করেননি’।

তিনি আরো বলেন, ‘আমাকে জানানোর বিষয়টি বানোয়াট। তাছাড়া নদী ও নদী বন্দর সংক্রান্ত সকল দায়দায়িত্ব তো অভ্যন্তরীণ নদী বন্দর কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ)’।

ডিসি বলেন, ‘ডিসি এবং বিআইডব্লিউটিএ’র অনুমতি ছাড়া এখানে প্রকল্প গড়ে তোলার কোনো অধিকার কারো নেই’।

এখনো পর্যন্ত কাউকে এ ধরনের কোনো অনুমতি দেয়া হয়নি বলেও তিনি জানান। সেই সঙ্গে ওই জায়গাটি তিনি খুব শিগগিরই পরিদর্শনে যাবেন বলেও জানান।

তবে বানারিপাড়া পৌর সভার মেয়র ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম সালেহ মজনু মোল্লা বিষয়টি সম্পর্কে অবগত আছেন বলে তিনি জানান।

তিনি বলেন, ‘কবরস্থান ও ঈদগাহ মাঠের জন্য আমাদের কিছু জায়গা দরকার। সে জন্য আমরা সরকারের কাছে কিছু জমি চেয়েছি। কিন্তু ইউএনও যেখানে সাইবোর্ড টাঙ্গিয়েছেন সেখানে তো আমরা জমি চাইনি’।
নদী দখলের ঘটনা এটিই প্রথম নয়। গত বছর স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ও স্থানীয় কিছু প্রভাবশালী লোকজন বানারিপাড়া বাজারের কাছে নদী ভরাট করে একটি মার্কেট ও আওয়ামী লীগের একটি কার্যালয় তৈরি করেছেন।

গত বছরের ৩ আগস্ট তৎকালীন আওয়ামী লীগ সংসদ সদস্য মনিরুল ইসলাম উপজেলা আওয়ামী লীগের ওই কার্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। বানারিপাড়া পৌর মেয়র সেদিন তাকে (মনিরুল) ধুমধাম করে স্বাগত জানিয়েছিলেন এবং ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলে॥

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় কয়েকজন ব্যবসায়ী জানান, আওয়ামী লীগের ওই কার্যালয়ের নির্মাণের আগেও স্থানীয় কিছু নেতা নদীর ভেতর প্রায় ৫ হাজার ফিট বেড়া দিয়ে ঘিরে রাখে। কিছুদিন পর তারা ওই জায়গা মাটি দিয়ে ভরাট করে ব্যবসায়ীদের কাছে প্রত্যেক শতাংশ ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেয়।

বিষয়টি জেনেও এ ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ নেননি ইউএনও। অথচ সেখান থেকে মাত্র ৫০০ মিটার দূরে। ডেইলি স্টার

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 SwadeshNews24
Site Customized By NewsTech.Com