1. ccadminrafi@gmail.com : Writer Admin : Writer Admin
  2. 123junayedahmed@gmail.com : জুনায়েদ আহমেদ, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর : জুনায়েদ আহমেদ, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর
  3. swadesh.tv24@gmail.com : Newsdesk ,স্বদেশ নিউজ২৪.কম : Newsdesk ,স্বদেশ নিউজ২৪.কম
  4. swadeshnews24@gmail.com : নিউজ ডেস্ক, স্বদেশ নিউজ২৪.কম, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর: : নিউজ ডেস্ক, স্বদেশ নিউজ২৪.কম, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর:
  5. hamim_ovi@gmail.com : Rj Rafi, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান : Rj Rafi, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান
  6. rifatkabir582@gmail.com : রিফাত কবির, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান : রিফাত কবির, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান
  7. skhshadi@gmail.com : শেখ সাদি, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান: : শেখ সাদি, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান:
  8. srahmanbd@gmail.com : এডমিন, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান : এডমিন, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান
বাঙালি অভিবাসীরা ভারতের শত্রু নন - Swadeshnews24.com
শিরোনাম
মুক্তিযোদ্ধা বাবাকে হেলিকপ্টারে পদ্মা সেতু দেখালেন অভিনেতা মক্কায় সামরিক বাহিনীর মহড়া ট্রেন থেকে পড়ে আহত শিশুর পরিবারের সন্ধান মেলেনি ইঞ্জিন বিকল হয়ে ভাসতে থাকা ৫ জেলেকে উদ্ধার করেছে কোস্ট গার্ড ‘খুবই ভালো ব্যাটিং করেছেন সাকিব’ রুশ সেনাদের গুরুত্বপূর্ণ রেল ব্রিজে বোমা হামলা পানের বরজ ঘেরাও করে ৪ ডাকাত গ্রেফতার বন্যাদুর্গতদের পাশে ‘নটরডেমিয়ান ৯৯’ মিতু হত্যা: দুই সন্তানকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পিবিআই ঈদে বাড়ি ফিরতে মানতে হবে ১২ নির্দেশনা রোজা আফরোজার ডিজাইনে লোরাটো’র জাঁক-জমক ফ্যাশন শো অনুষ্ঠিত ওয়াকারের বিরুদ্ধে নতুন অভিযোগ ঈদে মিলন মাহমুদের ‘মনের মানুষ’ মূল্যস্ফীতি সামাল দিতে সংকোচনমুখী মুদ্রানীতি সৌদি পৌঁছেছেন প্রায় ৫৭ হাজার হজযাত্রী, ১২ জনের মৃত্যু

বাঙালি অভিবাসীরা ভারতের শত্রু নন

  • Update Time : বুধবার, ১৪ মে, ২০১৪
  • ১৬৫ Time View

23267_x3 ভারতে বাঙালি অভিবাসীদের টার্গেটে পরিণত করা হচ্ছে। একপেশে করে রাখা হচ্ছে তাদের। তারা ভারতে সবচেয়ে বিপন্ন গোষ্ঠী। অথচ তারা ভারতের মানুষকে সেবা দিচ্ছেন। তাদের অফিসে, কারখানায় কাজ করছেন। রিকশা টানছেন। এমনকি তারা নির্মাণ শ্রমিক হিসেবে কাজ করছেন। তাদের কোন পছন্দ নেই। তাদের সন্দেহজনক আচরণ নেই। তাদের নেই কোন মুখপাত্র। তাদেরকে শত্রু হিসেবে না দেখে, অনাকাক্সিক্ষত হিসেবে না বিবেচনা করে তাদেরকে মেনে নেয়াটাই হবে বেশি সমীচীন।

সম্প্রতি ভারতের নির্বাচনী প্রচারণায় সেখানে অবস্থানরত বাংলাদেশিদের দেশে ফেরত পাঠানো ইস্যুতে পরিবেশ উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। এখন নির্বাচন শেষ। এ সময় এ ইস্যুতে দ্য এশিয়ান এইজ একটি মূল্যায়ন প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। ‘টার্গেটিং অ্যান্ড মারজিনালাইজিং বাংলা ইমিগ্র্যান্টস ইন ইন্ডিয়া’ শীর্ষক ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, ভারতে অবস্থানরত বাঙালিরা বিভিন্ন সময়ে আক্রমণের শিকার হন। বিশেষ করে সেই আক্রমণ আসে ভারতের রাজনীতির ডানপন্থিদের তরফ থেকে। তারা বাঙালিদের দেখে থাকেন হুমকি হিসেবে। বাঙালি অভিবাসীদের বেশির ভাগই মুসলিম। তাদেরকে দেখা হয় সন্দেহের চোখে।

ভারতীয়রা মনে করেন, তাদের যে প্রবাহ ভারতের দিকে তাতে ভারতের স্থানীয় জনসংখ্যার বিস্তারের ধরনই পাল্টে যাবে। তাদের মতে, এর একটাই সমাধান। তাহলো বাংলাদেশের অবৈধ অভিবাসীদের ফেরত পাঠাতে হবে এবং সীমান্ত বন্ধ করে দিতে হবে। নয়া দিল্লিতে স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশ বাংলাদেশী অভিবাসীদের শনাক্ত করতে ও তাদের দেশে ফেরত পাঠাতে অনেক অভিযান পরিচালনা করেছে।

এসব মানুষের পরিণতি কেউ জানে না। কেউ জানে না তারা বাংলাদেশে ফিরে যান নাকি তারা অন্য কোন জটিল ও সর্পিল জীবনের পথ বেছে নেন। এ সমস্যার শেষ নেই কোনো। পর্যায়ক্রমে এ ইস্যুতে ভারতের এক বা একাধিক রাজনীতিক এ ইস্যুতে হুমকি দেবেন। ভারতে হয়তো কয়েক হাজার বাংলাদেশি মুসলমান বসবাস করছেন। তবে তাদের সংখ্যা কয়েক লাখ নয়। তাদেরকে শনাক্ত করা ও তাদের ফেরত পাঠানো উত্তম ধারণা হতে পারে, কিন্তু ঘড়িকে তো পিছন দিকে নেয়া যায় না। যে মানুষ ভারতে বসতি স্থাপন করেছে, গভীর সামাজিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক গড়েছে তাদেরকে ধ্বংস করা যায় না, ফেরত পাঠানো যায় না। এমন উদ্যোগ হবে অবাস্তব। অমানবিক। তা হবে ব্যর্থ এক উদ্যোগ।

তবে এখনও যেসব ব্যক্তি বসতি স্থাপন করেননি তাদেরকে টার্গেট করা যেতে পারে। তাদেরকে তুলে এনে ফেরত পাঠানো যেতে পারে। এমন চর্চা করা হলে তা নিয়ে মিডিয়ায় সংবাদ শিরোনাম হবে। খুশি হবেন অনেকে। কিন্তু তাতে অর্জন হবে সামান্যই। বাংলাদেশি অভিবাসীদের শত্রু মনে না করে তাদেরকে মেনে নেয়াই উত্তম।

বাংলাদেশি অভিবাসীর কারণে ভারতের জনসংখ্যা তত্ত্ব পরিবর্তন হয়ে যাবে এমন আতঙ্কের পিছনে কোনো ভিত্তি নেই। বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গে ও আসামের কোনো কোনো অংশে বাংলাদেশি অভিবাসীরা রয়েছেন একপেশে হয়ে। তারা গরিব। তারা সবসময়ই রাজনীতির টার্গেটে পরিণত হন। অভিবাসীদের ভারতের প্রতি ভালবাসা কম আছে- এটা অস্বীকার করার কোনো কারণ নেই। একই সঙ্গে রাজনীতিতে ইসলামের ক্ষেত্র হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছেন তারা- এমন ধারণাও ঠিক নয়। এটা পরিষ্কার যে, এর জন্য ভারতীয়রাই দায়ী। ভীষণ গরিব যেসব মানুষ সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতে প্রবেশ করেন, শুধু বাংলাদেশিরাই নন, নেপালি নন, এমনকি পাকিস্তানি নন, তাদেরকে ভারত থামাতে পারে না। এমনকি যুক্তরাষ্ট্র তার ব্যাপক জনসম্পদ ও পুলিশি ব্যবস্থা দিয়ে হিস্পানিক অভিবাসীদের আগমন ঠেকাতে পারেনি।

বাইরের দেশের কাছে আকর্ষণীয় এমন কোনো দেশই তা পারেনি। যেমনটি পারেনি ইউরোপ। ভারতীয় নেতাদের বিশ্বাস করতে হবে যে, এই উপমহাদেশে বর্তমানের রাজনৈতিক বিভক্তি সত্ত্বেও মানুষের মধ্যে গড়ে উঠেছে এক বিশাল মানবিক নেটওয়ার্ক। বাংলাদেশিদের রাজনৈতিক ও জনসংখ্যা তত্ত্বে হুমকি হিসেবে দেখার চেয়ে নয়া দিল্লির উচিত অগ্রগামী হওয়া। যৌথভাবে সৌহার্দ্যপূর্ণ মানসিকতায় সমস্যার সমাধান করা। বাংলাদেশের গরিব শ্রমিক, যারা ভারতের বিভিন্ন শহরে, কৃষি খামারে বা কারখানায় কাজ করছেন তারা ভারতের শত্রু নন। মুসলিম অভিবাসীরা ভারতের কোনো রাজ্যের শত্রু নন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 SwadeshNews24
Site Customized By NewsTech.Com