1. ccadminrafi@gmail.com : Writer Admin : Writer Admin
  2. 123junayedahmed@gmail.com : জুনায়েদ আহমেদ, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর : জুনায়েদ আহমেদ, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর
  3. swadesh.tv24@gmail.com : Newsdesk ,স্বদেশ নিউজ২৪.কম : Newsdesk ,স্বদেশ নিউজ২৪.কম
  4. swadeshnews24@gmail.com : নিউজ ডেস্ক, স্বদেশ নিউজ২৪.কম, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর: : নিউজ ডেস্ক, স্বদেশ নিউজ২৪.কম, সম্পাদনায়-আরজে সাইমুর:
  5. hamim_ovi@gmail.com : Rj Rafi, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান : Rj Rafi, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান
  6. rifatkabir582@gmail.com : রিফাত কবির, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান : রিফাত কবির, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান
  7. skhshadi@gmail.com : শেখ সাদি, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান: : শেখ সাদি, সম্পাদনায়-সাইমুর রহমান:
  8. srahmanbd@gmail.com : এডমিন, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান : এডমিন, সম্পাদনায়- সাইমুর রহমান
বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ রেহানা কেন প্রতীকী মূল্যে বাড়ি নিবেন ? - Swadeshnews24.com
শিরোনাম
দণ্ডিত হাজি সেলিম জামিন পেলেন ৭০ ভাগ মানুষ চায় রোনাল্ডো না খেলুক! নেইমারের ব্রাজিলকেই ফেবারিট মানেন মেসি খেলতে নামার আগে জোড়া সুসংবাদ ব্রাজিলের ভেনিসে শামীম আহমেদ এর আগমন উপলক্ষে সংবর্ধনা ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নাগরিক সচেতনতায়র্্যালী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত জনপ্রিয় টিকটকারের আকস্মিক মৃত্যু এবার জিৎ এর সিনেমা পরিচালনায় বাংলাদেশের সঞ্জয় সমাদ্দার এবার মেসির প্রেমে নায়িকা পূজা চেরি গাজায় বিমান হামলা চালাচ্ছে ইসরাইল পিইসি বাতিল, ফিরে এলো প্রাথমিক বৃত্তি পরীক্ষা খালেদা জিয়ার ওপর নির্যাতনের আরেকটি নতুনমাত্রা যুক্ত হয়েছে: রিজভী নিজ বাড়ি থেকে স্কুলছাত্রীর লাশ উদ্ধার রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে পুলিশের ব্লক রেইড ম্যাচ জয়ের পর যা বললেন মেসি

বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ রেহানা কেন প্রতীকী মূল্যে বাড়ি নিবেন ?

  • Update Time : শনিবার, ১০ মে, ২০১৪
  • ৩০৭ Time View

dablu-300x335 জাতির পিতার পরিবার সদস্যদের নিরাপত্তা আইন-২০০৯ এর অধীনে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ রেহানাকে গুলশানে একটি বাড়ি দেয়া হচ্ছে বলে সম্প্রতি পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। এ ব্যাপারে প্রক্রিয়া প্রায় চূড়ান্ত বলে জানা গেছে। বাড়িটির প্রতীকী মূল্য ধার্য করা হয়েছে ১০০১ টাকা। গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা নাকি এই বাড়ি বরাদ্দের কথা স্বীকার করেছেন। জাতির পিতার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নাকি ইতিমধ্যেই অনুমোদনও দিয়ে ফেলেছেন। আদালতের রায়ে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ রেহানাকে একটি স্থায়ী ঠিকানা দেয়ার জন্য বলা হয়েছে।

জানি না সবকিছুর সত্য মিথ্যা কতটুকু। আমার প্রশ্ন জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ রেহানা কেন প্রতীকী মূল্যে বাড়ি নিবেন? হঠাৎ করে সরকারী বাড়ি নেওয়ার কি তার প্রয়োজন? সরকারের দেওয়া বাড়ি নাম মূল্যে তিনি কেনই বা নিবেন? এ প্রশ্ন শুধু আমার নয়, আমার মত কোটি কোটি বাঙালি যারা জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে বাংলাদেশের প্রতীক হিসেবে মনে করে।

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকার সময় শেখ রেহানাকে ঠিক এমনিভাবে ধানম-িতে একটি বাড়ি বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এরপর বিএনপি-জামায়াত জোট ক্ষমতায় এসে ঐ বরাদ্দ বাতিল করে দেয়। পরবর্তিতে বিএনপি জামায়াত জোট সরকারের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে গিয়েছিলেন শেখ রেহানা।

একসময় আদালতের রায়ে বাড়িটি ফিরে পেলেও পরে তিনি সিদ্ধান্ত বদলে তা সরকারকে ফেরত দিয়ে দেন। তার এই মহৎ সিদ্ধান্ত ঐ সময় সর্বত্র প্রশংসিত হয়েছিল। ঐ বাড়িটি পরবর্তিতে খালেদা জিয়া ক্ষমতায় এসে ধানম-ি থানা ভবন বানিয়ে নিজে উদ্ভোধন করে বঙ্গবন্ধু পরিবারের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নিয়েছিলেন। এখন বাড়িটি ধানম-ি পুলিশ ফাড়ি হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

জানা গেছে, শেখ রেহানা নাকি এবারো বাড়ি নিতে রাজি নন। তবে তার ছেলে-মেয়েরা নাকি থাকবে এই বাড়িতে। তাই বাড়িটির প্রয়োজন বলে মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়েছে। এখানে উল্লেখযোগ্য যে ১৯৭৫ সালের ১৫ অগাস্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার সময় তার দুই মেয়ে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা বিদেশে থাকায় প্রাণে রক্ষা পেয়েছিলেন।

রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান মারা যাওয়ার পর একই কারণে তার স্ত্রী খালেদাকে একটি বাড়ি বরাদ্দ দিয়েছিলেন এরশাদ সরকার। তবে তিনি সেই বাড়িতে না থেকে একইভাবে বরাদ্দ পাওয়া ঢাকা সেনানিবাসের বাড়িতে বসবাস করে আসছিলেন। অর্থাৎ ঐ সময় ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্ট এরশাদ খালেদাকে একইসাথে দুইটি বাড়ি দিয়েছিলেন। গতবার আওয়ামী লীগের নেতৃত্তাধীন জোট সরকার সেনানিবাসের বাড়িটির বরাদ্দ বাতিল করে সেখানে সামরিক কর্মকর্তাদের জন্য ফ্ল্যাট তৈরী করেছে। সেনানিবাস ছাড়ার পর গুলশানে বরাদ্দ পাওয়া বাড়িতে ওঠেননি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তিনি অন্য একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে বসবাস করছেন এবং নিজের বাড়িটি ভাড়া দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

এখন প্রশ্ন হলো খালেদা জিয়া বাড়ি নিয়েছেন বলেই যে জাতির জনকের কন্যাকে নাম মাত্র মূল্যে বাড়ি নিতে হবে এমন কোনো কথা নয়। খালেদা জিয়াকে এরশাদ যেভাবে অবৈধভাবে নাম মাত্র মূল্যে বাড়ি দিয়েছিলেন ঠিক একইভাবে আজকে বর্তমান সরকারও শেখ রেহানাকে বাড়ি দিতে যাচ্ছে। তাহলে খালেদা জিয়ার সাথে জাতির জনকের পরিবারের পার্থক্য থাকলো কোথায়। আওয়ামী লীগের মধ্যে ঘাপটি মেরে বসে থাকা সুবিধাবাদীরা একসময় নাম মাত্র মূল্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে গণভবন পর্যন্ত দিয়ে দিয়েছিল। আজ তারাই বঙ্গবন্ধু পরিবারকে নিয়ে নুতন করে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। কালোকে কালো আর সাদাকে সাদা বলতে তাদের সৎ সাহস নেই। সবসময় একটা ভয় তাদের চারিদিকে ঘুর ঘুর করে। এই কারণে চোখের সামনে কোনো অন্যায় দেখলেও তারা কখনো প্রতিবাদ করেন না। নিজ নিজ স্বার্থের জন্যই এধরনের আওয়ামী পন্থীরা আজ চোখ বুঝে সব কিছুকেই বাহাবা দেয়। আমার মনে পরে আওয়ামী লীগের মধ্যে বসে থাকা এসকল চাটুকারেরা ৯৬ আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এলে সবকিছুর নাম পাল্টে বঙ্গবন্ধুর নাম দেওয়ার প্রতিযোগিতায় নেমে পরেছিল। ঐ সময় আমার পরম শ্রদ্ধেও লেখক আবদুল গাফফার চৌধুরী ভাই এর প্রচ- সমালোচনা করে পত্রিকায় অনেক কিছু লিখে এসকল চাটুকার থেকে দূরে থাকার জন্য শেখ হাসিনা সাবধান করেছিলেন।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর পরিবার বাংলাদেশের প্রতীক। সন্মানিত এই পরিবারের দিকে তাকিয়ে আছে কোটি কোটি মানুষ। আগামী প্রজন্মের অনেক কিছুই শিক্ষার আছে বঙ্গবন্ধু পরিবার থেকে। তার সুযোগ্য কন্যা বর্তমান প্রধানমন্ত্রী রাত দিন পরিশ্রম করে যাচ্ছেন পিতার স্বপ্ন একটি স্বনির্ভর বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে। তার চলার পথের প্রতিটি মুহূর্তে রয়েছে জীবনের হুমকি। তবুও তিনি বাংলার মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য স্বনির্ভর বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে জীবনের হুমকি থাকা সত্বেও রাত দিন কাজ করে যাচ্ছেন। এমনি সময়ে এধরনের একটি স্বিদ্ধান্ত বঙ্গবন্ধু পরিবারের প্রতি বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হওয়ার সম্ভবনা দেখা দিতে পারে। অন্যদিকে মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তি ও বিএনপি জামায়াত জোট সমালোচনা করার একটা বড় সুযোগ হাতে পেয়ে যাবে।

আমরা যতটুকু জানি বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ রেহানা বর্তমানে স্থায়ীভাবে লন্ডনে বসবাস করেন। অন্যদিকে তার কন্যা টিউলিপকে আগামীতে হয়তো আমাদের ব্রিটিশ পার্লামেন্ট মেম্বার হিসেবে দেখার সৌভাগ্য হতে পারে। ছেলে ববি বেশিরভাগ সময় বিদেশেই থাকেন। তাহলে কেন এই বাড়ি নেওয়া কিংবা দেওয়ার প্রশ্ন আসবে? বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ রেহানা কেন নিবেন প্রতীকী মূল্যে বাড়ি? আদালত থেকে এধরনের রায় দেওয়া হলেও আমরা আশা করবো জাতির জনকের কন্যা এই রায়কে আরেকবার প্রত্যাখ্যান করে দেশ ও জাতির কাছে তার মহত্ততা প্রকাশ করবেন। আমরা তাকে জেনারেল জিয়ার স্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মত দেখতে চাই না। যিনি তার স্বামী হত্যার উছিলায় বিরাট সম্পত্তির মালিকানা পেয়েছিলেন। আর এই সুযোগ করে দিয়েছিলেন আরেক জেনারেল যার নাম এরশাদ। সম্প্রতি এই এরশাদকে তিনি তার স্বামী জিয়ার হত্যাকারী হিসেবে দাবি করে বিচার চেয়েছেন। এতদিন পরে হঠাৎ করে তার এই দাবি অনেককে আশ্চর্য করেছে বৈকি। কারণ তিনি ক্ষমতায় থাকতে কখনো একথা বলেননি এবং এরশাদের বিরুদ্ধে জিয়া হত্যার কোনো মামলাও করেননি।

শেখ রেহানা বাড়িটি নিলে বঙ্গবন্ধুর পরিবার নিয়ে কালিমা লেপনের একটা বড় সুযোগ হাতে পাবে মুক্তিযুদ্ধের বিপক্ষ শক্তি। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে কালিমা লেপনের লক্ষ্যে জিয়াও একসময় ষড়যন্ত্র করেছিলেন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পর তার বাড়িতে পাওয়া সোনার পরিমাণ তিনি প্রকাশ্যে মিডিয়ায় প্রকাশ করেছিলেন। দেখাতে চেয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু কত সোনার মালিক।

এই সময় পরলোগত টিভি তারকা হুমায়ুন ফরিদির প্রাক্তন স্ত্রী মিডিয়ায় গিয়ে জাতির জনকের বিরুদ্ধে বলেছিলেন, শেখ মুজিব আমাদের বলেন বেলি ফুলের মালা দিয়ে বিয়ে করতে আর তার বাড়িতে এখন পাওয়া যায় বরি বরি সোনা। জিয়া বঙ্গবন্ধুকে জনগণের কাছে ছোট করতে, অপমান করতে চেয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুর নামে কলঙ্ক মাখা সেই মহিলা এখনো জীবিত আছেন। তিনি এখন একজন অবসরপ্রাপ্ত সচিবের স্ত্রী। কিন্তু বাস্তব কি ছিল তা কখনই জিয়া জনগণকে জানার সুযোগ দেননি। বঙ্গবন্ধুর নিরাপত্তা অফিসার আমার বাবা তখন অনেক দুঃখে কষ্টে বলেছিলেন কিভাবে ষড়যন্ত্র করে জিয়া বঙ্গবন্ধুকে জনগণের সামনে অসম্মানি করলো। আসল সত্য হলো জাতির জনকের বাড়িতে পাওয়া সোনার নৌকাগুলো তাকে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন শাখা থেকে উপহার হিসেবে দেওয়া হয়েছিল। আর বাকি জিনিসগুলো তিনি বিভিন্ন দেশে রাষ্ট্রীয় সফরকালে উপহার হিসেবে পেয়েছিলেন। এগুলোই তিনি তার বাড়িতে সাজিয়ে রেখেছিলেন। জনগণের দেওয়া উপহারগুলো তার নিজের ছিল না ছিল রাষ্ট্রের। অথচ চতুর জিয়া এই সোনাকে বঙ্গবন্ধুর সোনা বলে মিডিয়ায় প্রচার করেছিলেন। বঙ্গবন্ধু পরিবার নিয়ে ষড়যন্ত্র আগেও হয়েছে, এখনো হচ্ছে,ভবিষ্যতেও হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2020 SwadeshNews24
Site Customized By NewsTech.Com